সুশান্ত সিং রাজপুত ছিলেন একজন ভারতীয় অভিনেতা,উদ্যোক্তা এবং সমাজসেবী। রাজপুত টেলিভিশন সিরিয়াল দিয়ে তাঁর ক্যারিয়র শুরু করেছিলেন।সুশান্ত সিং রাজপুত এর টেলিভিশন জগতে আত্মপ্রকাশ ঘটে স্টার প্লাসের রোমান্টিক নাটক কিস দেশ মে হ্যায় মেরা দিল দিয়ে। তার পরে জি টিভির জনপ্রিয় সিরিয়াল পবিত্র রিশতা দিয়ে সুশান্ত সিং রাজপুত লাইম লাইটে আসেন। সুশান্ত সিং রাজপুত ঝালাক ধিখলা যা রিয়ালিটি শোতেও অংশগ্রহন করেছিলেন এবং সেখানে তিনি বিভিন্ন পুরষ্কার ও পেয়েছিলেন।

সুশান্ত সিং রাজপুত পাটনা শহরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি ছাত্র হিসবেও আনেক ভাল ছিলেন।দিল্লি কলেজ অফ ইঙ্গিনিয়ারিংয়ে সপ্তম হয়েছিলেন ২০০৩ সালে।তিনি মেকানিকাল ইঙ্গিনিয়ারিং পড়ার তৃতীয় বর্ষে ড্রপ আউট হয়ে যান তবে ফেইল করে না,নিজে থেকেই ছেড়ে দেন কারন তার ধ্যান গ্যান ছিল অভিনয়।

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সংবাদ এই হতাশাময় বছরের সর্বশেষ আঘাত। তার এই আত্মহত্যা করাটা সাধারন জনগণ থেকে শুরু করে ভারতের প্রধান মন্ত্রী পর্যন্ত কেউ মেনে নিতে পারছে না। আর বিনোদন জগততো স্তব্ধ এবং হতাশাগ্রস্ত এই খবর শুনার পর থেকেই।

বলিউড এর তরুণ তারকাদের মধ্যে  তিনি অন্যতম। রাজপুত তার জেনারেশন এর মধ্যে সবচেয়ে প্রতিভাধর এবং পরবর্তী জেনারেশন এর সুপারস্টার হওয়ার সমস্ত গুন তার মধ্যে ছিল যেমন- ভাল চেহারা, প্রতিভা, যথেষ্ট হিস্টিরিওনিক্স।তিনি খুব সাবলীল ভাবে অভিনয় করতেন।কাই পো চে (২০১৩) এবং সুধ দেশি রোমান্সে(২০১৩) এই দুইটি সিনেমাতে তিনি যেমন সাধারন তরুনের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন নাচরালি । ঠিক তেমনি ব্যোমকেশ বকশি (২০১৫) ও মহেন্দর সিং ধনির চরিত্রেও নিজের অভিনয় দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। কাই পো চে এর তরুন থেকে মহেন্দ্রর সিং ধনি এর চরিত্র তার অভিনয়ের বাপ্তি সম্পর্কে স্বচ্ছ ধরনা দেয়।
সুশান্ত সিং রাজপুতের কিছু উল্লেখযোগ্য সিনেমা নিয়ে আলোচনা করা যাক

কাই পো চে (২০১৩)

২০১৩ সালে তিনি তার বড় পর্দাই আত্মপ্রকাশ করেছিলেন – চেতন ভগতের বই ‘দ্য থ্রি মিস্টেকস অফ মাই লাইফ’ ​​অবলম্বনে  নির্মিত কাই পো চে  সিনেমার মাধ্যমে। ক্রিকেটের সাথে রাজনীতির অদ্ভুত মিশ্রণ এই সিনেমাটি। আবার এই সিনেমার মধ্যে আছে তিন বন্ধুর অভিনব গল্প। হতাশাগ্রস্ত, ক্ষুব্ধ ও উত্তেজিত স্থানীয় ক্রিকেটার ইশান এর চরিত্রে অভিনয় করেন রাজপুত। এই মুভিতে একজন গরীব শিশু আলিকে দেশের সেরা ব্যাটসম্যান হতে সাহায্য করতে দেখা যাই সুশান্তকে। আসলে ঐ গরিব শিশুকে দিয়ে নিজের অধরা স্বপ্ন পুরন করতে ছেয়েছিলেন এই মুভিতে। চোখ  ধাঁধানো সিনেমেটোগ্রাফি আর সাবলীল স্ক্রীন প্লে দর্শকদের মাতিয়ে রাখেবে পুরা সিনেমা জুড়ে। এই মুভিতে সুশান্ত সিং রাজপুত এর অভিনয় ছিল অসধারন। তবে সিনেমার ক্লায়মাক্স দর্শকদের হৃদয়ে দাগ কেটে দিবে এইটা নিশ্চিত।

এম.এস. ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি (২০১৬)

কাই পো চে মুভির বছর তিনেক পরে, রাজপুত আবার ক্রিকেটকে নিয়ে সিনেমা করেন। এই বার সুশান্ত সিং রাজপুত অভিনয় করে লিভিং লেজেন্ড মাহেন্দ্রার সিং ধনি এর চরিত্রে। তাঁর ক্যারিয়ারের অন্যতম হিট – নীরজ পান্ডের  এম.এস. ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি (২০১৬)। নিজের আচরণ ও মনোভাবের কারণে তিনি প্রাক্তন ভারতীয় অধিনায়কের চরিত্রে মনোনিবেশ করেছিলেন খুব সহজেই। কিন্তু রাজপুত কখনই ধোনি হওয়ার ‘ভান’ করেননি।ধনির চরিত্রে অভিনয় করার জন্য সময় লেগেছিল আট মাস। এইখান থেকে তার ডেডিকেশন সম্পর্কে ধরনা করা জায়।এই সিনেমাতে অভিনয় করে রাজপুত সমলাচোক এবং দর্শক উভয় মহলেই প্রশংসিত হয়েছিলেন।
৭১ বাংলাদেশের টিম মেম্বারদের মতে এই দুইটা তার সেরা সিনেমা।

সুশান্ত সিং রাজপুত একজন অত্যন্ত পরিশ্রমী অভিনেতা হিসাবে বিনোদন জগতে পরিচিত। তিনি নিজের পরিশ্রমের জন্য প্রশংসিত হয়েছিলেন  এবং তার প্রতিটি অভিনয়তে এর বহিঃপ্রকাশ ঘটে। তাঁর মধ্যে অন্তর্নিহিত শক্তি, গতিশীলতা,তারুণ্যতা এবং স্বতঃস্ফূর্ততা  উপস্থিতি ছিল। এই সব গুনগুলার উধারণ হল নিম্নের সিনেমাগুলা

 

সুধ দেশি রোমান্স (২০১৩)

এই মুভিটি আনেকের পছন্দের আবার আনেকের অপছন্দের। এই খানে সুশান্ত সিং রাজপুতকে দেখা যাই এক ভারতীয় তরুন এর চরিত্রে যে কিনা প্রেম এবং বিয়ে নিয়ে বিভ্রান্ত। ইয়াশ রাজ ফ্লিমস এর এই মুভিটি আধুনিক যুব সমাজের প্রেমের সমীকরণ নিয়ে বানানো হয়েছে। এই খানে ভারতীয় তরুনদের বিয়ে না করার প্রবণতা এবং লিভিং রিলেশনে থাকার প্রবণতাকে হাইলাইট করা হয়েছে। এই সিনেমায় সুশান্ত খুব সুন্দর অভিনয় করেছেন।খুব বেশি কিছু করার চেষ্টা করেন নি। তার চরিত্রকে সুন্দর ভাবে বড় পর্দাই উপস্থাপন করেছিলেন।

পিকে (২০১৪)

রাজ কুমার হিরানির ব্লকবাস্টার পিকে সিনেমায় খুব ছোট কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেলিনে সুশান্ত সিং রাজপুত। একজন পাকিস্তান তরুনের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তিনি। তাবে যেইটুকু স্ক্রীন টাইম পেয়েছিলেন নিজেকে পরিপূর্ণ ভাবে মেলে ধরেছিলেন।

ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ বক্সী (২০১৫)

সুশান্ত সিং রাজপুত নিজের লাভার বয় ইমেজকে ভেঙ্গে ফেলেন এই চরিত্রের মাধ্যমে। ব্যোমকেশ বকশির চরিত্রে সুশান্ত সিং রাজপুত অসাধারণ অভিনয় করেছিলেন এবং ছবিটি দেখার পরে দর্শকরাও অন্য কোনও ব্যক্তিকে একইভাবে এই চরিত্রে অভিনয় করতে দেখতে পাবেন না।তার দেহের ভাষা, পদ্ধতিগুলি নিখুঁত এবং তিনি একজন গোয়েন্দা হিসাবে উপযুক্ত। এইটা চরিত্র তার ক্যারিয়ের সেরা অভিনয় হিসাবে গণ্য করাই যাই।

কেদারনাথ (২০১৮)

এই সিনেমাতে সুশান্ত সিং রাজপুত একজন মুসলিম তরুনের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। তার অভিনয় ছিল দুর্দান্ত। সঠিক সময়ে আত্মবিশ্বাসের সাথে তার বিভিন্ন এক্সপ্রেশনগুলির ছিল চমৎকার । তিনি পাহাড়ী ছেলের ভুমিকায় তার ভাষা ও বডি লাঙ্গুয়েজ ছিল এক কথায় দুর্দান্ত এই চরিত্রের মাধ্যমে তার পরিশ্রমের নমুনা পাওয়া যায়।

সুশান্ত সিং রাজপুত কখনই  বলিউড এর ছাঁচে নিজেকে ফিট করেননি, বলিউডের কোনও শক্তিশালী  শিবিরের অন্তর্ভুক্ত ছিলেন না এবং গতানাগুতিক  ভিড় থেকেও আলাদা ছিলেন।আর নেপটিসাম এর প্রশ্নয় উঠে না। তিনি একজন বহিরাগত অভিনেতা ছিলেন ঠিক শাহরুখ খানের মতো।তার চার্ম,হসি,গুনাবালি কিং খানের সাথে মিলে জায়।এই করনে অনেক বিনোদন রসিক তাকে শাহরুখ এর মত “Outside Superstar ” বলে আক্ষায়িত করা শুরু করেন। এই দুইটি সিনেমা তারই প্রমান।

ছিচোরে (২০১৯)

এটি একটি অসাধারন সিনেমা।কমেডি প্লাস সামাজিক বার্তা এই রকম মুভি বলিউডে বরবর সফল।এই মুভি সুশান্ত সিং রাজপুতের সবচেয়ে বাবসা সফল মুভি।এই সিনেমাই তিনি তার অভিনয়কে অন্য মাত্রায় নিয়ে গেছিলেন কারন একই সাথে তিনি একজন মাঝ বয়সী পুরুষ এবং একজন কলেজ পড়ুয়া তরুনের চরিত্রে অভিনয় করেছিলন। এই সিনেমার মাধ্যমে তিনি সত্তিকার ভাবে সুপারস্টার হিসাবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করা শুরু করেছিলেন কিন্তু ভাগ্যের কি পরিহাস এইটা তার জীবনে শেষ সিনেমায় পরিণত হল।

শোনচারিয়া (২০১৯)

সুশান্ত সিং রাজপুতের ক্যারিয়ারের সবচেয়ে ভিন্নধর্মী চরিত্র এইটা। এই খানে তিনি ১৯৭০ দশকের ভারতের চাম্বাল এলাকার একজন ডাকাত। তিনি বুন্দেল্গানি ভাষা খুব চমৎকার ভাবে আয়ত্ত করেছিলেন এবং চরিত্রতাও ছিল বেশ জটিল। এই সিনেমার একটা ডায়লগ আছে-

Apni apni Sonchiriya, apni apni mukti

এর অর্থ হল – আপন আপন চিন্তা , আপন আপন মুক্তি । আশা করি যারা বুঝার বুঝে গেছেন।

সুশান্ত সিং রাজপুতের ক্যারিয়ার ছোট হলেও তার বেশির ভাগ অভিনীত চরিত্রগুলা ছিল চমৎকার। তার মধ্যে ৭১ বাংলাদেশ এর টিম মেম্বাররা ৫ টি সেরা চরিত্র নির্বাচন করেছেন। এই মুভি আর চরিত্র গুলা সম্পর্কে উপরেই বলা আছে।
. ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ বক্সী
. এম.এস. ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি 
. ছিচোরে
৪. শোনচারিয়া
৫. কাই পো চে

সুশান্ত সিং রাজপুতের জীবনের আরও অনেক দিক ছিল। তার বাক্তিগত জীবন ছিল,তার লাইফ স্টাইল ছিল আর আরও কিছু মুভি ছিল কিন্তু একজন প্রয়াত মানুষের সফলতা আর ভাল দিক নিয়ে আলোচনা করতে হয় , আমরাও তাই করেছি। তবে ভারকান্ত হৃদয় নিয়ে তার গল্প করতে চাই নি।এই আর্টিকেল আমি অতীত কালে লিখেছি কিন্তু এইটা আমি বর্তমানে কালে লিখতে চেয়েছিলাম।
সুশান্তের আত্মহত্যা নিয়ে তারকাদের কিছু তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া দিয়ে শেষ করছি এই লেখা—

Sushant Singh Rajput…a bright young actor gone too soon. He excelled on TV and in films. His rise in the world of entertainment inspired many and he leaves behind several memorable performances. Shocked by his passing away. My thoughts are with his family and fans. Om Shanti.

–  NARENDRA MODI

 

Shocked to hear about Sushant Singh Rajput. This is so difficult to process. May his soul RIP and may god give all the strength to his family and friends

-Virat KoHli

 

This is distressing, can’t come to terms that this has happened. Really disturbing. Brilliant actor RIP brother.

-Rohit Sharma

 


References:

১. https://www.thehindu.com/entertainment/movies/sushant-singh-rajput-obituary-a-true-blue-shooting-star-who-leaves-behind-a-short-but-sparkling-legacy-of-films/article31827522.ece

২. https://www.firstpost.com/india/sushant-singh-rajput-passes-away-tracing-the-actors-inspiring-journey-from-television-to-movie-stardom-8483541.html

৩. https://www.hindustantimes.com/bollywood/rip-sushant-singh-rajput-from-playing-ms-dhoni-to-a-bandit-in-sonchiriya-here-are-his-5-best-films/story-WfRmGazlS78ggw70YDNoUN.html

৪.koimoi.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here