বিশ্বের জানা-অজানা সব বিষয় নিয়ে আমাদের সাথে লিখতে আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন।

হার্শেল গিবস এবং যুবরাজ সিং ছয়টি ছক্কা মারার জন্য বিখ্যাত হওয়ার আগে ভারতের সাবেক অলরাউন্ডার রবি শাস্ত্রী ১৯৮৫ সালে এই কাজটি করেছিলেন।ওই ইনিংসে রবি শাস্ত্রী মাত্র ১১৩ মিনিটে দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন এবং রবি শাস্ত্রী এর লেগেছিল মাত্র ১২৩ বল ডাবল সেঞ্চুরি সম্পূর্ণ করতে।

এক ওভারে ছয়টি ছয় মারার ঘটনা দ্বিতীয়বারের মত ঘটে,ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম এই ক্রিতি অর্জন করেন গ্যারি সোবার্স।যদিও রবি শাস্ত্রি এটি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচে করেছিলেন তারপরেও ব্যাপারটা মোটেও সোজা ছিল না ওই সময়ের প্রেক্ষাপটে। ছয়টি ছক্কা খওয়া বোলার ছিলেন তিলক রাজ।

রবি শাস্ত্রী জন্মগ্রহন করেন ১৯৬২ সালের ২৭ মে ,মানে আজকের দিনে তিনি ৫৮ বছর বয়সে পা দিলেন।তার পুরা নাম “রবিশঙ্কর শাস্ত্রী” তার অরিজিন মাঙ্গালর হলেও তিনি বোম্বাইয়ে (এখন মুম্বাই) ছোট থেকেই আছেন।জুনিয়র কলেজের শেষ বছর, তিনি রঞ্জি ট্রফিতে বোম্বাই দলের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তখন রবি শাস্ত্রী এর বয়স ছিল ১৭ বছর ২৯২ দিন তৎকালীন সময়ে বোম্বেয়ের হয়ে সর্বকনিষ্ঠ ক্রিকেটার তিনি। যদিও তিনি বাঁহাতি স্পিন বোলার হিসাবে ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন, পরে তিনি নিজেকে ব্যাটিং অলরাউন্ডার হিসাবে রূপান্তরিত করেছিলেন। রবি শাস্ত্রী ক্রিকেট মহলে তার ঝলমলে ব্যক্তিত্ব এবং আগ্রাসী মনোভাবের জন্য বিখ্যাত।

খেলোয়াড় হিসাবে রবি শাস্ত্রী

তিনি ছিলেন আলরউণ্ড ক্রিকেটার। ৮০ টি টেস্টে ৩৬ গড়ে ৩৮৩০ রান এবং ১৫০ ওয়ানডেতে ২৯ গড়ে ৩১০৮ রান মটেও খারাপ না । উল্লেখযোগ্য কথা হল তার ব্যাটিং পজিশন কোনসময় ঠিক ছিল না। একেক সময় একেক পজিশনে ব্যাটিং করতেন।আর বোলার হিসবে, ৮০ টেস্টে ১৫১ উইকেট এবং ১৫০ ওয়ানডেতে ১২৯ উইকেট ।ফিল্ডার হিসবেও রবি শাস্ত্রী ছিলেন চমৎকার।তার আনেক উল্লেখযোগ্য অবদান আছে কিন্তু ওই রকম ম্যাচ উইনিং একক অবদান নেই। তার আরেকটি উল্লেখযোগ্য অর্জন হচ্ছে ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপের বিজয়ী দলের সদস্য ছিলেন তিনি।টেস্ট এবং ওয়ানডেতে ২০০০ রান এবং ১০০ উইকেট নিয়ে দুটি ভারতীয়র ক্রিকেটার এর একজন রবি শাস্ত্রী।

ভাষ্যকার হিসাবে রবি শাস্ত্রী

রবি শাস্ত্রী জনসাধারনের এর কাছে সর্বধিক পরিচত ভাষ্যকার হিসাবে ও ক্রিকেট মহলের একজন জনপ্রিয় ধারা ভাষ্যকার।রবি শাস্ত্রী সর্বাধিক বেতনের ভাষ্যকার এবং চতুর ক্রিকেটিয় মনের একজন। যদিও আমরা সবাই জানি যে একই জিনিস বারবার পুনরাবৃত্তি করার তার অভ্যাস রয়েছে, তবে আমাদের স্বীকার করতে হবে যে বিগত দুই দশকের ভারতীয় ক্রিকেটের প্রতিটি দুর্দান্ত ও ঐতিহাসিক মুহূর্তে তার কণ্ঠ ছিল।রবি শাস্ত্রী এর কিছু বিখ্যাত উক্তি যা তিনি ভাষ্য বক্সে বসে প্রায় করেন বা করেছিলেন

১. ” As the day progresses its only going to get hotter ” – তিনি এই উক্তিটি পিচ রিপোর্ট দেওয়ার সময় হড় হামেশাই করেন।
২. ” Make no mistake about it, this is a pressure cooker situation “- যেকোনো খেলার উত্তেজনাময় মুহূর্তে সে এই উক্তিটি করবে।
৩. ” That’s what the doctor ordered ” – ছার,ছয় কিংবা উইকেট তার এই উক্তিটি আমরা প্রায় শুনে থাকি।
৪. ” Edged and taken “- স্লিপ কিংবা উইকেটরক্ষক এর কাছে ক্যাচ গেলে তিনি এই কথাটি বলেন।
৫. ” First man in planet to reach 200 and it’s a superman from India ” – শচিন টেন্ডুলকার যখন ২০০ রান করেন সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে তখন তিনি এই উক্তিটি করেন।
৬. ” Dhoni finishes off in style. India wins world cup after 28 years. Party begins in Mumbai” – ভারতীয় ক্রিকেটের সবচেয়ে ঐতিহাসিক মুহূর্তের করা তার উক্তি।

ভারতীয় ক্রিকেট দলের পরিচালক হিসাবে  রবি শাস্ত্রী

রবি শাস্ত্রী ২০১৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ভারতীয় দলের পরিচালক ছিলেন। তাঁর অধীনে, বিরাট কোহলি টেস্ট অধিনায়ক হয়েছিলেন এবং ভারত  শীর্ষস্থানীয় টেস্ট দল হয়ে উঠেছিল। শাস্ত্রী ভারতকে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালেও নিয়ে গিয়েছিল।

ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচ হিসাবে শাস্ত্রী

সৌরভ গাঙ্গুলি, শচীন টেন্ডুলকারের সমন্বয়ে গঠিত ক্রিকেট উপদেষ্টা কমিটি (সিএসি) কর্তৃক ২০১৭ জুলাই মাসে শাস্ত্রী জাতীয় দলের প্রধান কোচ হিসাবে নিয়োগ পেয়েছিলেন।চুক্তিতে তাকে প্রতি বছরে ৮ কোটি রুপি দেওয়া হচ্ছে।তাঁর পূর্বসূর অনিল কুম্বলেয়ের চেয়ে ১.৫ কোটি রুপি বেশি।বিশ্বকাপ ২০১৯ যেমন চলেছে, ১৩  জুন, বিসিসিআই টুর্নামেন্টের 45 দিনের মধ্যে শাস্ত্রীর চুক্তি বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন।১৬ ই আগস্ট ২০১৯-এ, তিনি ভারতের সিনিয়র পুরুষদের ভারতীয় দলের প্রধান কোচ হিসাবে পুনরায় নিয়োগ পেয়েছিলেন, তার নতুন চুক্তিটি ২০২১সালের আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত বাড়ানো। কোচ হিসাবে রবি শাস্ত্রী সফল হলেও তার অধীনে এখন পর্যন্ত ভারত কোন বড় ইসিসি ইভেন্ট জিতেনি।

রবি শাস্ত্রীকে নিয়ে কিছু বিতর্ক

শক্তিশালী, সুদর্শন, এবং ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাসের অন্যতম প্রতিভাবান পুরুষ হলেন রবি শাস্ত্রী কিন্তু বিতর্ক তার পিছন ছাড়েনি। তার কিছু বিতর্কময় ঘটনা তুলে ধরা হল।

  • অনূর্ধ্ব ১৯ দলের সদস্য থাকাকালীন শাস্ত্রী তার ওয়ার্ডেনের কাছে বিয়ার পান করতে গিয়ে ধরা পড়েন।
  • ২০১৯ সালের অক্টোবর মাসে, রাঁচিতে ভারত এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার টেস্ট ম্যাচের মাঝামাঝি সময়ে ঘুমিয়ে পড়েন তাও আবার তিনি ভরতিয় দলের কোচ।
  • বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি এবং প্রধান কোচ রবি শাস্ত্রী একে অপরকে একেবারেই পছন্দ করেন না এবং তাদের মধ্যে স্নায়ু যুদ্ধ বিদ্যমান।
  • অনিল কুম্বলে যেভাবে ভারতীয় দলের প্রধান কোচের পদ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন, তার সিদ্ধান্তের পেছনে কারণ হিসাবে সরাসরি বিরাট কোহলিকে এবং রবি শাস্ত্রী দোষ দিয়েছিলেন।

২০১১ বিশ্বকাপে ভারতের জয়ের পরে সবচেয়ে বিখ্যাত মন্তব্যটি, এমন এক ব্যক্তির কাছ থেকে এসেছিলেন, যিনি এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ভারতীয় ক্রিকেটকে পরিবেশন করেছিলেন।শাস্ত্রি তাঁর বেশিরভাগ ক্রিকেট ক্যারিয়ারে নজরদারীর মধ্যে ছিলেন কারণ সমালোচকর তার পিছনে লেগেই ছিলেন এবং বর্তমানেও লেগেই আছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here